উম্মুল মু’মিনীন হযরত সাওদা আলাইহিস সালাম উনার সংক্ষিপ্ত পবিত্রতম জীবনী মুবারক
উসওয়াতুন হাসানাহ | ৩ রবীউছ ছানী, ১৪৩৫ হি:

উম্মুল মু’মিনীন হযরত কুবরা আলাইহাস সালাম তিনি নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মুবারক ছোহবতে প্রায় ২৫ বছর কাটিয়ে আনুষ্ঠানিক নুবুওওয়াত মুবারক প্রকাশের দশম বছরে পবিত্র রমাদ্বান শরীফে বিদায় গ্রহণ করেন। ওই সময় উম্মুল মু’মিনীন হযরত কুবরা আলাইহাস সালাম উনার বয়স মুবারক ছিল প্রায় পঁয়ষট্টি। উনার বিদায় বা পবিত্র বিছাল শরীফ উনার সময় নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার চার কন্যা সন্তানের মধ্যে তিন কন্যা হযরত যয়নব আলাইহাস সালাম, হযরত রুকাইয়া আলাইহাস সালাম এবং হযরত কুলছূম আলাইহাস সালাম উনারা ছিলেন বিবাহিতা। আর চতুর্থ কন্যা সাইয়্যিদাতুন নিসা আহলিল জান্নাহ হযরত ফাতিমাতুয যাহরা আলাইহাস সালাম তিনি ছিলেন অবিবাহিতা। হযরত কুলছূম আলাইহাস সালাম তিনি বিবাহিতা হলেও তিনি নাবালিকা ছিলেন।

আনুষ্ঠানিক নুবুওওয়াত মুবারক প্রকাশের দশম বছরের দিকে মহান আল্লাহ পাক উনার রসূল, নূরে ‍মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি পবিত্র দ্বীন প্রচারের কাজে অত্যন্ত ব্যতিব্যস্ত ছিলেন। ওই সময় মুসলমানদের সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছিল। ফলে কাফির-মুশরিকদের বিরোধিতা ও নির্যাতনও ছিল অত্যন্ত তীব্র।

নতুন মুসলমানদের এবং পবিত্র দ্বীন ইসলাম সম্বন্ধে অবগত হতে আগ্রহী ব্যক্তিদের অভ্যর্থনা ও সেবা-শুশ্রূষার বেশ প্রয়োজন ছিল। এসব কাজে উম্মুল মু’মিনীন হযরত কুবরা আলাইহাস সালাম তিনি ছিলেন নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার নিত্যসঙ্গিনী।

উম্মুল মু’মিনীন হযরত কুবরা আলাইহাস সালাম তিনি বিছাল শরীফ ‍উনার পর কন্যাদের দেখাশুনা, খোঁজ খবর নেয়া ও সংসারের অন্যান্য কাজকর্মের আঞ্জাম দেয়া ছিল কষ্টসাধ্য। কারণ পবিত্র দ্বীন প্রচারের কাজে আঞ্জাম দেয়ার কারণে অন্যদিকে সময় দেয়াটা ছিল কঠিন। ওই ব্যস্ত দিনে নূরে মুজাস্সাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার খালা হযরত খাওলা বিনতে হাকিম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহা তিনি একদিন উনার ঘরে আগমন করে দেখতে পেলেন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি নিজ হাত মুবারকে বাসন-তৈজস পত্র মুবারক পরিষ্কার করছিলেন। তখন উনার খালা উনাকে সরিয়ে দিয়ে নিজেই সেগুলো ধোয়া-মোছার কাজে লাগেন এবং বলেন যে, সংসারের কাজকর্ম দেখাশোনার জন্য একজন উম্মুল মু’মিনীন আলাইহাস সালাম উনার প্রয়োজন। নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি উনার সাথে একমত হলেন। নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার এই খালা হযরত খাওলা রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহা বিনতে হাকিম ছিলেন বিশিষ্ট ছাহাবী হযরত উছমান বিন মাযউন রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনার সম্মানিতা আহলিয়া।

হযরত খাওলা বিনতে হাকিম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহা তিনি তখন সম্ভাব্য কনে হিসেবে উম্মুল মু’মিনীন হযরত সাওদা বিনতে যাময়া রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহা উনার নাম মুবারক প্রস্তাব করেন। উম্মুল মু’মিনীন হযরত সাওদা আলাইহিস সালাম তিনি তখন উনারই সংসারে ছিলেন। নূরে মুজাসসাম, হবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি কিছু সময় চুপ থাকলেন, অতঃপর খলিক মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার তরফ থেকে ওহী মুবারক দ্বারা সম্মতি জ্ঞাপন করেন।

সূত্র : আল ইহসান শরীফ

বিষয় : হযরত উম্মুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম, সাইয়্যিদাতুন নিসায়িল আলামীন, হযরত সাওদা আলাইহিস সালাম
এই বিভাগ থেকে আরও পড়ুন
« পূর্ববর্তী| সব গুলি| পরবর্তী »