সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খাতামুন নাবিয়্যীননূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মুবারক আফজালিয়াত
উসওয়াতুন হাসানাহ | ২৭ শা’বান, ১৪৩৫ হি:

মহান আল্লাহ পাক রাব্বুল আ’লামীন মানব জাতির হিদায়েতের উদ্দেশ্যে যুগে যুগে অসংখ্য নবী-রসূল আলাইহিস্ সালাম প্রেরণ করেছেন। উনাদের মধ্যে সর্বশ্রেষ্ঠ এবং সর্বশেষ নবী ও রসূল হিসেবে প্রেরিত হয়েছেন, সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খাতামুন নাবিয়্যীন হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম। উনার পবিত্র নূর মুবারককে সর্বপ্রথম সৃষ্টি করা হয়েছে এবং উনার নূর মুবারক থেকে পর্যায়ক্রমে সমস্ত মাখলুকাত সৃষ্টি হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ মুবারক করেন,

“মহান আল্লাহ পাক প্রথমে আমার নূরকে সৃষ্টি করেছেন এবং সমস্ত কিছু আমার নূর হতে সৃষ্টি করেছেন।”

মহান আল্লাহ পাক রব্বুল আলামীন উনার হাবীব, সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খাতামুন নাবিয়্যীন হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে মহান আল্লাহ পাক যে কত বড় সম্মান এবং মর্যাদার অধিকারী করেছেন, তা সাধারণ মানুষের আক্বল ও সমঝের বাইরে।

এ প্রসঙ্গে শুধু এতটুকু বলাই যথেষ্ট যে, ক্বিয়ামত পর্যন্ত সমস্ত মাখলুকাত যদি মহান আল্লাহ পাক উনার রসূল, হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার ছানা-ছিফত করতে থাকে, তবুও উনার শ্রেষ্ঠত্বের বিন্দুমাত্র প্রশংসাও তারা করতে পারবে না। উনার মর্যাদা-মর্তবা এবং শ্রেষ্ঠত্ব ঠিক ততটুকুই, মহান আল্লাহ পাক যতটুকু বর্ণনা করেছেন।

উনার সুউচ্চ মর্যাদা সম্পর্কে মহান আল্লাহ পাক পবিত্র কালামুল্লাহ্ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ ফরমান,

“আর আমি আপনার আলোচনাকে সমুন্নত করেছি।” সুবহানাল্লাহ!

নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মর্যাদা ও শ্রেষ্ঠত্ব সম্পর্কে পবিত্র কুরআন শরীফ উনার অসংখ্য আয়াত শরীফ এবং পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে বর্ণিত রয়েছে। যার দু’একটি নিম্নে উল্লেখ করে আমরা অন্য দৃষ্টিতে মহান আল্লাহ পাক উনার রসূল, হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার শ্রেষ্ঠত্ব প্রমাণ করার প্রয়াস পাব।

মহান আল্লাহ পাক বলেন,

“(হে আমার হাবীব) আপনি বলে দিন, হে মানুষ জেনে রাখ, আমি সমস্ত মাখলুকাতের জন্যে নবী হিসেবে প্রেরিত হয়েছি।” সুবহানাল্লাহ!
[পবিত্র সুরা আ’রাফ শরীফ- পবিত্র আয়াত শরীফ ১৮৫]

পবিত্র হাদীছে কুদসীতে মহান আল্লাহ পাক বলেন,

“আমি আপনাকে সৃষ্টি না করলে, আসমান-যমীন কোন কিছুই সৃষ্টি করতাম না।” সুবহানাল্লাহ!

এখানে উল্লেখ্য যে, মহান আল্লাহ পাক রব্বুল আলামীন উনার হাবীব, সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-ই মূলতঃ সমস্ত কিছু সৃষ্টির মূল।

মহান আল্লাহ পাক পবিত্র সুরা নেছার ৮০নং আয়াত শরীফ উনার মধ্যে হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার শ্রেষ্ঠত্ব বর্ণনায় বলেন,

“যে ব্যক্তি রসূল (ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) উনার আনুগত্য করেছে, সে তো মহান আল্লাহ পাক উনারই আনুগত্য করলো।” সুবহানাল্লাহ!
[পবিত্র সূরা নেছা শরীফ- পবিত্র আয়াত শরীফ ৮০]

হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন,

“ক্বিয়ামতের দিন আমার হাতে মহান আল্লাহ পাক রাব্বুল আ’লামীনের বিশেষ হাম্দের (প্রশংসার) পতাকা থাকবে। হযরত আদম আলাইহিস্ সালাম সহ সমস্ত নবী আলাইহিস্ সালাম গণ আমার পতাকা তলে সমবেত হবেন, অথচ এতে আমার কোন গর্ব নেই।” সুবহানাল্লাহ! [তিরমিযী শরীফ]

হযরত ফিরিস্তাকুলের সাইয়্যিদ হযরত জিবরীল আলাইহিস্ সালাম বলেন,

“আমি সমগ্র দুনিয়া ছফর করেছি, কিন্তু হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম অপেক্ষা উত্তম (শ্রেষ্ঠ) আর কাউকে পাইনি, আর বণী হাশিমের চেয়ে উত্তম কোন গোত্রও দেখিনি।” সুবহানাল্লাহ! [তিবরানী, দালায়েলে আবু নাঈম]

বিভিন্ন কিতাবাদিতে মহান আল্লাহ পাক উনার হাবীব, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার শ্রেষ্ঠত্ব এবং প্রশংসা বর্ণিত হয়েছে। যেমন- কবি কা’ব ইবনে  যুহাইর ‘বানাত সুয়াদ’- এ বলেন,

“আপনার আলোতে নেই পৃথিবীতে কোন অন্ধকার আপনি তো মহান আল্লাহ পাক উনার প্রিয় জ্যোতির্ময় মুক্ত তরবার।”

আধ্যাত্মিক জগতের অমর কবি বিশিষ্ট ছূফী হযরতুল আল্লামা মাওলানা জালালুদ্দীন রুমী রহমতুল্লাহি আলাইহি লিখেছেন,

পুণ্যবান খ্রিস্টানেরা পুণ্যের আশায় অবিরাম
ভক্তি ভরে চুমো খেত যখন আসতো সেই নাম
সে পবিত্র নামে তারা মুখ রেখে অসীম শ্রদ্ধায়
কপালে ঠেকাত হাত মুহব্বতে নবী প্রশংসায়।” সুবহানাল্লাহ!

সাধক কবি হযরত শায়খ সাদী রহমতুল্লাহি আলাইহি লিখেছেন, যার কাব্যানুবাদ করেন, উপমহাদেশের শ্রেষ্ঠ ভাষা বিজ্ঞানী সূফী ডক্টর মুহম্মদ শহীদুল্লাহ্,

অতিশয় মহান গুণগান যাঁহার
রূপে যাঁর অমারনাশে ঘোর আঁধার
মনোরম যাঁহার সমুদয় আচার
পড় সব দুরূদ হে উপর তাঁহার। সুবহানাল্লাহ!

 মহান বুযূর্গ হাফিজ কবি হযরতুল আল্লামা সিরাজী রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার মানস পঁটে নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম,

গরিমা উনার বর্ণিবে কেউ এমন সাধ্য নেই
খোদার পরেই শ্রেষ্ঠ তিনি তুলনা উনার নেই।  সুবহানাল্লাহ!

পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে প্রিয় নবী হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন,

“আমি মহান আল্লাহ পাক উনার কাছে পূর্ববর্তী ও পরবর্তী সকলের চেয়েও অধিক সম্মানিত।” সুবহানাল্লাহ! [দারেমী, তিরমিযী]

মহান আল্লাহ পাক উনার হাবীব হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার শ্রেষ্ঠত্বের জন্যে হুজ্জাতুল ইসলাম, ইমাম গাজ্জালী রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার এ কথাটুকুই যথেষ্ট। তিনি লিখেছেন,

“এ বিষয়ে উম্মতের ঐকমত্য (ইজমা) প্রতিষ্ঠিত হয়েছে যে, মদীনা শরীফ উনার মধ্যে রওজা মুবারকের যে মাটি টুকু মহান আল্লাহ পাক উনার হাবীব, সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খাতামুন নাবিয়্যীন হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার শরীর মুবারক স্পর্শ করে আছে, সে মাটি টুকুকে মহান আল্লাহ রাব্বুল ইজ্জত, উনার পবিত্র আরশে আযীস উনার চেয়েও বেশি মর্যাদা দান করেছেন।” সুবহানাল্লাহি ওয়া বিহামদিহী!

সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খাতামুন্ নাবিয়্যীন হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এমনি একজন ব্যক্তিত্ব, যাঁর শ্রেষ্ঠত্ব বর্ণনা করা একমাত্র মহান আল্লাহ পাক উনার পক্ষেই সম্ভব। অন্য কোন মাখলুক কখনও উনার যোগ্য প্রশংসা করতে পারে না। তবে উনার প্রশংসা করে মাখলুক নিজের মর্যাদা-মর্তবাকেই ‘বুলন্দ’ করে মাত্র।

যে কথা বিশিষ্ট কবি ছাহাবী হযরত হাসসান বিন ছাবিত রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু দ্ব্যর্থহীন কন্ঠে ঘোষণা করেন,

“আমার লিখনী (কবিতা) দ্বারা আমি নূরে মুজাস্সাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার (উপযুক্ত) প্রশংসা করতে পারিনি; বরং মুহম্মদ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার প্রশংসার কারণে আমার লিখনীই (কবিতাই) প্রশংসিত হয়েছে।”

মহান আল্লাহ পাক আমাদেরকে সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খাতামুন্ নাবিয়্যীন হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার শান-শওকত, মর্যাদা-মর্তবা এবং শ্রেষ্ঠত্ব অনুধাবন করার তৌফিক দান করুন এবং সর্বোপরি উনার খাছ তাওয়াজ্জুহ, যিয়ারত এবং মুহব্বত ও খাছ সন্তুষ্টি নছীব করুন। (আমীন)

সূত্র : মাসিক আল বাইয়্যিনাত

বিষয় : ফাযায়িল-ফযীলত ও পবিত্রতা, হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, আফজালিয়াত, সর্বোত্তম, বৈশিষ্ট, মুবারক
এই বিভাগ থেকে আরও পড়ুন
« পূর্ববর্তী| সব গুলি| পরবর্তী »